এখনও আগুনে জ্বলছে সুন্দরবনে

bhawalnews.com

বাগেরহাট প্রতিনিধি : পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দাসে ভারানি এলাকায় আগুন এখনও জ্বলছে। আলোর স্বল্পতা থাকায় বুধবার (৫ মে) বিকেল পাঁচটায় আগুন নির্বাপন অভিযান সমাপ্ত করেছে ফায়ার সার্ভিস। বৃষ্টি বা প্রাকৃতিক কারণে রাতের মধ্যে আগুন না নিভলে বৃহস্পতিবার (৬ মে) ভোরে আবারও আগুন নির্বাপন অভিযান শুরু করবে ফায়ারসার্ভিস। বন বিভাগের কিছু সংখ্যক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রাতেও ওই এলাকায় অবস্থান করবে বলে জানিয়েছেন সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারি বন সংরক্ষক জয়নাল আবেদীন।

তিনি বলেন, সোমবার (৩ মে) দুপুরে যে আগুন লেগেছিল সকলের চেষ্টায় মঙ্গলবার বিকেলে আমরা আগুন নেভাতে সক্ষম হই। কিন্তু বুধবার সকালে আবারও অগ্নিকাণ্ডের স্থানের দক্ষিণ পাশের কিছু কিছু জায়গা থেকে ধোয়া বের হতে দেখা যায়। পরবর্তীতে বিভিন্ন জায়গায় আগুন জ্বলে ওঠে। এখনও অনেক জায়গায় আগুন জ্বলছে। বিকেল ৫টায় ফায়ার সার্ভিস আগুন নির্বাপন কাজ সমাপ্ত করেছে। তবে পর্যবেক্ষনের জন্য আমাদের লোকজন বনের মধ্যেই থাকবে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, বাগেরহাটের সহকারি পরিচালক মো. গোলাম সরোয়ার বলেন, সকাল থেকে আমাদের তিনটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করেছে। প্রথমে ২৫টি ডেলিভারী পাইপ লাগিয়ে ভোলা নদী থেকে আগুন লাগার স্থান পর্যন্ত পানি দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে আরও ১০টি পাইপ লাগিয়ে অন্যান্য স্থানে পানি দেওয়া হয়েছে। বন বিভাগ ও আমাদের কর্মীরা আগুনের চারপাশে ফায়ার লাইন তৈরি করেছে। আগুন আর ছড়ানোর সম্ভাবনা নেই। এখনও আগুন জ্বলছে। পর্যাপ্ত আলো না থাকায় আমরা অভিযান সমাপ্ত করেছি। আমাদের মেশিনসহ সকল যন্ত্রপাতি বনের মধ্যে থাকছে। যদি রাতের মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে তাহলে বৃহস্পতিবার সকালে আবারও অভিযান করার আশ্বাস দেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, সোমবারের অগ্নিকাণ্ডের থেকে বুধবারের আগুনের তীব্রতা ও ব্যপ্তি অনেক বেশি। আমরা ধারণা করছি, অন্তত ১০ একর বনজুড়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে আগুন জ্বলছে। যে স্থানে আগুন লেগেছে ওখানে শুকনো পাতার পুরু স্তর রয়েছে। যার ফলে পানি দেওয়ার সাথে সাথে সম্পূর্ণ আগুন নিভে যায় না। সাধারণ আগুনের থেকে অতিরিক্ত পানি ব্যবহার করতে হয় সুন্দরবনের আগুন নেভাতে। সোমবার (৩ মে) দুপুর ১২টার দিকে শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি এলাকায় আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিস, বন বিভাগ ও স্থানীয়দের প্রায় ৩০ ঘন্টার চেষ্টায় মঙ্গলবার (৪ মে) বিকেল ৫টায় আগুন নিভে যায়। পরবর্তীতে বুধবার (৫ মে) সকালে পূর্বের আগুনের দক্ষিণ পাশে আবারও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এই নিয়ে গেল ২০ বছরে সুন্দরবনে ২৬ বার অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটল।