রোজা রাখি ছয়-সাত বছর বয়স থেকেই- মম

বিনোদন প্রতিবেদক : শুরু হয়েছে সংযম সাধনার মাস। খোশ আমদেদ মাহে রমজান। বছর ঘুরে রহমত, মাগফিরাত আর নাজাতের সওগাত নিয়ে আবারও এসেছে মাহে রমজান। সাধারণ মুসলমানদের পাশাপাশি তারকাদের ধর্ম পালন নিয়ে, নামাজ-রোজা নিয়ে ভক্তদের অনেক কৌতূহল। মুসলিম তারকারা রোজা রাখেন

রোজা নিয়ে শুটিং করেন, ব্যস্ত থাকেন নানা রকম কাজে। আর সবার মতো তাদেরও আছে রোজা রাখার অনেক মজার স্মৃতি। তাদের ভিড়ে জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী জাকিয়া বারী মম জানিয়েছেন তার শৈশবের রোজা রাখার মধুর স্মৃতি-

মম বলেন, খুব ছোটবেলা থেকেই রোজা রাখার অভ্যাস ছিলো আমার।তবে কবে প্রথম রোজা রেখেছিলাম তা-স্পষ্ট মনে নেই। ধারণা করি ছয় কি সাত বছর বয়স থেকেই রোজা রাখি আমি। শৈশবে রোজার মজার কোনো স্মৃতি এমন প্রশ্নের উত্তরে মম বলেন,অনেক মজার স্মৃতিই আছে। এখন সেসব মনে হলে মজা পাই। একা একাই হাসি।।কেন যে বড় হলাম। আগেই ভালো ছিলাম।

কতকিছু করা যেত।প্রায়ই একটা স্মৃতি মনে পড়ে রোজা এলেই। ভাজাপোড়া খাবার আমার পছন্দ না। তবে পিঁয়াজু আমার খুব প্রিয় ছিলো। আর আমাদের বাড়িতে এত মজা করে পিঁয়াজু তৈরি হতো যে কী বলবো। আমি বেশি খাবো বলে পিঁয়াজু লুকিয়ে রাখতাম। পরে ইফতার শেষে একা একা খেতাম। মনে পড়লেই হাসি পায়।

মম বলেন, প্রথম ইফতারের দিনটাই ছিলো উত্তেজনার। আনন্দ নিয়ে সেহরি খেয়েছিলাম, ইফতার করেছিলাম। বড় বেলার রোজা আর এখনকার রোজায় কী পার্থক্য পান মম বলেন, আকাশ পাথাল পার্থক্য। তখন অনেক মজা হতো। পায়ের উপর পা তুলে খেতাম। আর এখন নিজেকে রান্না কর‍তে হয়, কাজ করতে হয়।

এছাড়া শৈশবের রোজায় একটা উত্তেজনা ছিলো, রোমাঞ্চ ছিলো। এছাড়ও এখন ইফতার এবং সেহরির সময় ভাজাপোড়া খাবার এড়িয়ে চলি। ইফতারে ঠাণ্ডা খাবার খাই। ২০২১ সালে রোজায় বিশেষ কী প্রার্থনা করছেন মম বলেন,একটাই প্রার্থনা সবাইকে নিয়ে যেন ভাল থাকি। পৃথিবী সুন্দর ও সুস্থ হয়ে উঠুক।